আমার জীবনে ডোমেইন নিয়ে যে যে সমস্যার সম্মুখীন হয়েছি

আমি হোন্যে হোয়ে খুজছিলাম, একটা ডোমেইন বিক্রি করা বাংলাদেশের প্রতিষ্টান, তখন আনেকেই বিদেশি ভাই বন্ধু দের দিয়ে ডোমেইন কিনছে, আমার ক্রডিট কার্ড নেই বিদোশি ভাই বন্ধু ও নেই। কিন্তু একটা ডাচ বাংলা ব্যাংকএর কার্ড আছে।

আমি এমন একটি কোম্পানী খুজছিলাম যার বাংলাদেশে অফিস আছে। আমি বাটা সিগনালে এরকম একটা অফিস পেয়ে গেলাম , জায়গাটা শাহবাগ আর সাইন্সল্যাব এর মাঝামাঝি। যারা ডাচের কার্ড দিয় পেমেন্ট ন্যায়। আমার ডোমেইন টা ছিল b7s7.com এখনও এর ওয়ার্ডপ্রেস ভার্সনটা আছে b7s7.wordpress.com যাই হোক। তিন মাসের মাথায় তারা আমাকে মেইল দিল তারা কোম্পানিটি বন্ধ করবে এবং আমার হোস্টিং এর টাকা রিফান্ড কোরবে, আমি রিফান্ড দিয়ে কি কোরবো। ২০০৯ সালের কথা, আমার দিনের পড় দিনের রাতজাগা লেখা কেউয়েই দেখতে পাড়বে না, কস্টে আমার মনটা ভেঙ্গে গেল। তারা আমার ব্যাংকে কিছু টাকা রিফান্ড করল।

কিন্তু আমি না পাড়লাম ডোমেইন ট্রান্সফার কোরতে না পাড়লাম কোন কিছুর ব্যাকআপ কোরতে।

তারপর থেকে কিছুটা দেখে পথ চলা। দুবছর পড়ে মনে হোল ডোমেইন হোস্টিং ব্যাবসায় নামব, তার আগে একটা পত্রিকা বানিয়ে নিলাম যাতে প্রচুর জার্নালিজম করা যায়। ডোমেইন টার নাম ছিল crazypress.com আলফা নেট থেকে নিয়েছিলাম, বাংলাদেশের কোম্পানি, ততদিনে বিকাশ চোলে এসেছে। বড় ঝামেলায় পড়লাম যখন জায়গা বাড়াব, আমার হোস্টিং এর জায়গা শেষ। ফোনে কথা বলে মেইল পাঠিয়ে কোনো সমাধান পেলাম না, খুজে ফকিরাপুল এদের অফিসে গেলাম, ওয়েবসাইটে কত সুন্দর অফিসের ছবি দেওয়া। আমি সকাল ১১ টার দিকে গেয়েছিলাম। ফকিরাপুলের অফিস খুজে বের করতে আমার বিকেল হোয়ে গিয়েছিল, ঘুপচি দোতালায় এক রুমের একটা অফিস, একটি ছেলে বসা যে কিছুই পাড়ে না, মালিক বগুড়ায় থাকে। ছেলেটি কোনো টেকনিক্যাল সাহায্যে করতে পাড়ল না। মনটা আবার ভেঙ্গে গেল।

২০১৩ তে আমি প্রথম ক্রেডিট কার্ড পাই, সে এক অন্য গল্প, সময় সুযোগ পেলে অন্য কোন দিন বলবো। যাই হোক ব্লু হোস্টের প্রমিয়াম হোস্টিং কিনলাম foodhive.com নামে, অস্ট্রেলিয়ান একটা রেস্টুরেন্ট কোম্পানী, মালিক বাঙ্গালি আমার পরিচিত। তার ডিজিটাল ব্রান্ডিং করার জন্য কাজ করছি, এক বছর নির্ভেজাল কাজ করলাম, আনেকের ডোমেইন কিনে এখানে পার্ক করেছিলাম।

ব্লুহোস্ট করে কি, কোন মেইলওয়ার পেলে আপনার সাইট অফলাইন কোরে দ্যায় আর আপনাকে একটা মেইলে ইনফেকটেড ফাইলের লম্বা লিস্ট পাঠায় আর বলে ২০০ ডলারে তাদের মেইলওয়ার স্কানার কিনতে।

আমার প্রায় ৩০ জন ক্লাইন্ট প্রত্যেক দিন কারও না কারো সাইট অফ কোরে দিচ্ছে, প্রতেক বার খুজে খুজে ফাইল গুলো ডিলিট কোরতে হোচ্ছে,তারপর আবার সাইট আপ কোরে দিতে হোচ্ছে সে এক ভিষন যন্ত্রনার ব্যাপার। ২০১৬ সালে আমি সিদ্ধান্ত নেই আর হোস্টি, ডোমেইন মেইনটেন কোরবো না। বড় এপলিকেসন বানাব। দ্যাখা হয় পাইথন দিয়ে বানান জ্যাঙ্গো ফ্লাক্স এসবের সাথে, ওয়ার্ডপ্রেসকে বিদায় দিয়ে এদের সথে সময় দিতে আরম্ব করলাম।

আমার ডোমেইন গুলো আমি প্রথমে আমি ওয়ার্ডপ্রেস ডট কমে নিয়ে আসি ওখানে বছরে ১৮ ডলার খরচ হয় প্রতিটা ডোমেইনে।

আর যাদের আপ্লিকেশন বানাচ্ছি তাদের নিয়ে আসি হিরোকু তে, এখনে কন্টিনিউয়াস ডেভেলপমেন্ট এর মধ্যে তার এপ ডেভলপট কোরছে।

আমার কোড থাকে গিটহাবে, হিরুকু দিয়ে আমি সেটা কানেক্টেড করি আন্য দিকে আমার ওয়েব সাইট চোলতে থাকে। এই গল্পও সময় পেলে অথবা কেউ শুনতে চাইলে বলব।

ডোমেইন তাই গুগল থেকেই কেনা ভাল, আর হোস্টিং আপনার ইচ্ছে মত যে কোনটা ব্যাবহার কোরবেন।

Leave a Reply

%d bloggers like this: